নূরুল আমিনের ঘোষণাঃ দেন-দরবার

ফন্ট সাইজ:

২২ শে ফেব্রুয়ারী ভীত সন্ত্রস্ত নূরুল আমি সরকার কর্তৃক বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করিবার প্রস্তাবক্রমে পূর্ব পাকিস্তান আইন পরিষদ কেন্দ্রীয় সরকারের নিকট উক্ত মর্শে সুপারিশ করে। আন্দোলনের ভয়াবহরূপ অবলোকন করিয়া ২৪ শে ফেব্রুয়ারী সরকার পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদ বাজেট অধিবেশন অনির্দিষ্টকালে জন্য মূলতবী ঘোষণা করে। এইদিকে আন্দোলনের বৈল্পবিক রূপদৃষ্টে আরাম কেদারার রাজনীতিবিদ ও বৈঠক খানার বৈঠকী রাজনীতিবিদদরে আঁতে ঘা লাগে। তাঁহারা Citizens Committee বা নাগরিক পরিষদ গঠন করেন এবং ঐ কমিটির তরফ হইতে জনাব কামরুদ্দিন আহমদ সমঝোতা আনয়ণের জন্য আমাদের ও মুখ্যমন্ত্রী নূরুল আমিন সরকারের মধ্যে বৈঠকের প্রস্তাব দেন। বৈঠকের এই প্রস্তাবাবলী মেডিকেল কলেজ হোস্টেলে আমাদের নিকট পাঠান হয়। আমরা নাগরিক পরিষদের নেতৃবর্গের প্রতি যথারীতি শ্রদ্ধার সহিত নিবেদন করি, ঢাকার রাজপথে মিছিলে নেতৃত্ব দিন ও জনতার কাতারে শামিল হউন। ইহার বিকল্প যে কোন প্রচেষ্টাকে দেশবাসী বিশ্বাসঘাতকা বলিয়া চিহ্নিত করিবে। 

     এই সময়ে শেরে বাংলা এ,কে, ফজলুল হক মেডিকেল কলেজ হোস্টেলের সগর দরজায় উপস্থিত হইয়া ৫০০/- (পাঁচশত টাকা) চাঁদা দিতে চাহেন এবং আমাকে তাঁহার সহিত দেখা করিতে খবর পাঠন। সর্বজনমান্য শেরে বাংলা উপরোল্লিখিত নাগরিক কমিটির (Citizens Committee) অন্যতম নেতা এবং তিনি তখনও ঢাকা হাইকোর্টে নূরুল আমিন সরকার কর্তৃক নিযুক্ত সরকারী বেতনভুক্ত এডভোকেট জেনারেল। তাই তাঁহার সহিত আন্দোলনের এই সংকটময় মুহূর্থে দেখা না করাই শ্রেয় মনে করি।