গোল টেবিল বৈঠক

ফন্ট সাইজ:

     যাহা হউক, ২৬শে ফেব্র“য়ারী রাওয়ালপিন্ডিতে অনুষ্ঠিতব্য গোল টেবিল বৈঠকে যোগদানের সিদ্ধান্ত শেখ মুজিব পূর্বাহ্নেই রেসকোর্স সয়দানে ঘোষণা করিয়াছিলেন। ডেমোক্রেটিক এ্যকশন কমিটির ১৬ জন প্রতিনিধি, প্রেসিডেন্ট আইউব খানের নেতৃত্বে ১৫জন, নির্দলীয় এয়ার মার্শাল আসগর খান, বিচারপতি সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ ২৬শে ফেব্র“য়ারী সকাল ১০-৩০ মিনিটে রাওয়ালপিন্ডিতে অবস্থিত প্রেসিডেন্ট গেষ্ট হাউসে রাজনৈতিক সংকট উত্তরণকল্পে গোল টেবিল বৈঠকে মিলিত হন। ৪০ মিনিটব্যাপী বৈঠকের পর ঈদুল আযহা উপলক্ষে বৈঠক ১০ই মার্চ সকাল ১০ ঘটিকা পর্যন্ত মুলতবি রাখা হয়। লেঃ জেঃ আজম খান রাওয়ালপিন্ডিতে উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও বৈঠকে যোগ দেন নাই। পাকিস্তান পিপলস পার্টির সেতা জুলফিকার আলী ভুট্টো করাচীর এক সভায় কিছু অসংলগ্ন উক্তি প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট আইউব খানকে পদত্যাগ করিয়া জাতীয় পরিষদের স্পীকার আবদুল জব্বার খানের নিকট দায়িত্ব বুঝাইয়া দেওয়ার আহবান জানান। তাঁহার প্রস্তাব মতে, জাতীয় পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠান করিবেন এবং নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ দেশের সূতন সংবিধান রচনা করিবে। উল্লেখ্য যে, জনাব ভুট্টো ইতিপূর্বেও বৈঠকে যোগদানের পূর্বশর্ত হিসাবে ১৮ই ফেব্র“য়ারী (১৯৬৯) করাচী প্রেসক্লাবে বক্তৃতায় গোলটেবিল বৈঠকে যোগদানের নিমিত্ত প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের আমন্ত্রন প্রত্যাখ্যান করিয়াছিলেন। এবং কর্তৃপক্ষের বিবেচনার জন্য নিজস্ব ১০ দফা দাবী ঘোষণা করিয়াছিলেন। পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির প্রধান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী তখন ‘জ্বালাও পোড়াও’ আন্দোলনের মুখপাত্র, পিকিং-এর নির্দেশে আইউব সরকারের খুঁটি। সুতরাং গঠনমূলক কাজে সহায়তা প্রদান তাঁহার পক্ষে ছিল অসম্ভব। প্রকৃতপক্ষে তাঁহার ও তাঁহার দলের সরকার বিরোধী বিশেষ কোন কার্যকর ভূমিকা ছিল না, মৌখিক বুলি বা সংবাদপত্রে গা বাঁচানো বিবৃতিই ছিল তাঁহাদের একমাত্র অবদান।

মুলতবী গোল টেবিল বৈঠকে শেখ মুজিবের ভাষণ:
    ১০ই মার্চ মুলতবী গোল টেবিল বৈঠকে বাংলার কণ্ঠস্বর শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ নিম্নে দেওয়া হইল।

Mr. President & Gentlemen,

The nation today is experiencing a crisis which has shaken its very foundations. For all of us who love the nation and recall the sacrifices which were made to create Pakistan, this is a time of grave anxiety. In order to resolve the crisis, it is imperative that its nature should be understood and its causes identified. Nothing would be more casstrophic than the failure to come to grips with the basic issues which underline the upheaval which has taken place in the country. These issues have been evaded for twenty one years. The moment has a arrived for us to face them squarely. I am convinced that comprehensive solution must be found for our problems, for clearly the situation is too grave for pailiatives and half—measures. What is at stake is our survival.

Is is this conviction that obliges me to expound a comprehensive solution to our basic problems. lf the demands that have been expressed by different sections of the people are carefully examined, it will be seen that there are three basic issues which underlie them. The first is that of deprivation of political rights and civil liberties. The second is the economic injustice suffered by vast majority of the people, comprising workers, peasants, low and middle income groups, who have had to bear the burden of the costs of development in the form of increasing inflation while the benefits of such development are increasingly concentrated in the hands of a few families, who in turn are concentrated in one region. The third is the sense of injustice felt by the people of East Pakistan, who find that under the existing constitutional arrangements their basic interests have consistently _ suffered in the absence of effective political power being conferred upon them. The former minority provinces of West Pakistan feel similarly aggrieved by the present constitutional arrangements.

The issue of deprivation of political rights finds expression in the 11- point programme of the Students of East Pakistan, as also in the 6-point programme of the Awami League, as a demand for the establishment of a Parliamentary Democracy, based on the principle of the supremacy of the legislature, in which there is representation of all units on the basis of population, and to which representatives are directly elected by the people on the basis of universal adult franchise.

The issue of economic injustice is reflected in the ll—point programme in the form of clearly formulated demands for re-organisation ofthe economic and educational system of the country. The 6—point programme of my party clearly recognises the need for redical economic re-organisation, and the demand for regional autonomy, as outlined in it, is insisted upon as an essential pre-condition for economic re—organisation and the implementation of effective economic programmes.

The issue of justice for the different regions and units of Pakistan is the basis of the demand for the establishment of a Federation providing for full ° regional autonomy, as embodied in the 6—point programme as also in the ll-point programme, This is also the bassis of the demand for dismemberment of one Unit and the establishment of a Sub—Federation in West Pakistan.

The Democratic Action Committe has held detailed deliberations regarding these grave and challenging national issues. There has always been complete unanimity in the Democratic Action Committee on the ‘imperative necessity of effecting the following constitutional changes :

(a) The establishment of a federal parlimentary democracy.

(b) The introduction of a system of direct elections based on universal

adult franchise.

A consensus has also been apparent among the members of the

Committee on the following matters :

(a) The dismembermcnt of One Unit and the establishment of a Sub-

Federation in West Pakistan

(b) Full regional autonomy being granted to the regions.

The Committee further agreed that its members should be at liberty to present f urhter proposals, which in their view were essential for achiving an effective and lasting solution of the problems that are at the root of the present crisis.

Since we are here for the very purpose of seeking to lind such and effective and lasting solution. I have felt it my bounden duty to press before this Conference with all earnestness that every one sitting at this table should realise that constituional changes to provide for representation on the basis of population in the Federal Legislature as well as for the granting of full regional autonomy, as outlined in the 6—point programme, are essential for achieving a strong, united and vigorous Pakistan.

I would like to state that the Awami League is a party of the freedom-lighters for Pakistan. [ts founder, Huseyn Shaheed Suhrawardy is indeed one of the founders of Pakistan. I recall with some pride that under his leadership, my colleagues and I were in the vanguared of the struggle for Pakistan. Such proposals as I am presenting before the Conference are based on the conviction that they are absolutely essential in order to preserve and indeed to strengthen Pakistan.

The demand for representation in the Federal Legislature to be on basis of population stems from the first principle of democracy, viz., "one man, one vote". In the national forum, as envisaged in the 6-point scheme, only national issues would arise for consideration, The representatives would, therefore, be called upon to deal with matters from a national point of view and hence the voitng would not be on a regional basis, Further, national political panics would be representated in the Federal Legislature, which would ensure that voting would be on a party, and not on regional basis. Indeed the experience of the lest twentyone years bears out the fact that voting in the National Assembly has invariably been on party basis, lt is the principle of party in representation of each wing, which is based on the false premise that representatives in to Federal Legislature are likely to vote on a regional basis. It is thus the party principle that places and unjustified emphasis on regionalism as a factor in national politics. The entire historical experience of the last twentyone years fully bears out the facts that East Pakistan has always subordinated its regional interest to the over-riding national interest, not withstanding the fact that it had the majority of the population. It should not be necessary to recall that in the first Constituent. Assembly East Pakistan had 44 representatives as against 28 from West Pakistan; yet this majority was never used to promote any regional interest. Indeed, six West Pakistanis were elected to the Constituent Assembly from East Pakistan. Despite being a majority, East Pakistan accepted the principle of party not only in representation in the legislature but also in other organs of the Sale. It is painful to record that party so far as representation in the

Legislature was concerned, was promptly implemented, but the benefit of party in representation in the other organs of the State, including the civil, foreign and defence servies, was never extended to East Pakistan. East Pakistan had even acquicsced in the Federal Capital as well as all the Defence head-quarters being located in West Pakistan. This meant that the bulk of the expenditure on defence and civil administration, amounting to about Rs. 270 crores, or over 70% of the central budget is made in West Pakistan. Should our West Pakistani brethern persist in refusing us representation on a population basis in the Federal legislature, East Pakitanis will feel constrained to insist on the shifting of the Federal Capital and the Defence headquarters to East Pakistan.

It would be a positive step toward cementing the relations between the two wings of Pakistan if our West Pakistani brethern were to affirm their confidence in their East Pakistani brethern by not opposing the demand for representation in the Federal Legislature on the basis of population. Such a step would pay rich dividend by way of building up mutual confidence and trust between the people of East and West Pakistan.

The adoption of the Federal Scheme presented in the 6—point programme is an essential pre-requisite for the achievement of a political solution for the problems of the country. I would reiterate that the spirit underlying the 6-point programme is that Pakistan should present itself to the community of the nations as one single united nation of one hundred and twenty million people. This object is served by the Federal Government being entrusted with the three subjects of Defence, Foreign Affairs and Currency. It is the same objective of having a strong and vigorous Pakistan that requires that due regard be paid to the facts of geography by granting full regional autonomy to the regions in order to enable them to have complete control in all matters relating to economic management.

I cannot too strongly emphasise the imperative necessity of removing economic injustices, if we are to put our society back on an even keel. 'I'he. ll-point programme ofthe students for which I have expresed support contains proposals regarding the re—ordering of the economic and education system. These demands stem from the basic urge for the attainment of economic justice.

I would, however, like at this time to confine myself to outlining the constitutional changes, which are necessary for the attainment of economic justice, between man and man and between region and region.

The centralisation of economic management has steadily aggravated the existing economic injustices to the point of crisis. I need hardly dilate on the subject of the 22 families, who have already achieved considerable notoriety both at home and abroad on account of the concentration of wealth in their hands resulting from their ready access to the corridors of power. Monopolies and cartels have been created and a capitalist system has been promoted, in which the gulf between the privileged few and the suffering multitude of workers and peasants has been greatly widened. Gross injustices have also been inflicted on East Pakistan and the monirity i provinces of West Pakistan.

The existence of per capita income disparity between East and West l Pakistan is known to all. As early as 1959-60, the Chief Economist of the j Planning Commission estimated that the real per capita income disparity between East and West Pakistan was 60%. The Mid—plan Review made by the Planning Commision and other recent documents show that the disparity in real per capita income has been steadily increasing and therefore, would be much higher than 60% today. Underlying such disparity, is the disparity in general economic structure and infrastructure of the two regions, in the l rates of employment, in facilities for education, and in medical and welfare , services. To give just a few examples, power generating capacity in West Pakistan is 5 to 6 times higher than in East Pakistan; the number of hospital beds in 1966 in West Pakistan was estimated to be 26,200, while that in East Pakistan was estimated to be 6,900; between l96l-1966, only l8 Polytechnic Institutes were established in East Pakistan as against 48 in West Pakistan. Further, the disparity in the total availability of resources has been even higher. More than 80% of all foreign aid has been utilized in West Pakistan in addition to the net transfer of East Pakistan's foreign exchange earnings to West Pakistan. This made it possible for West Pakistan over 20 years to import Rs. 3 l09 crores worth of goods against the total export earnings of Rs. 1337 crore, while during the same period East Pakistan imported Rs 12l0 crore worth of goods as against its total earnings of Rs. 1650 crore. All these facts underline the gross economic injustice which has been done to East Pakistan. There has been a failure to discharge to constitutional obligation to remove disparity between the provinces in the shortest possible time. The Annual Report on disparity for the year l968 placed before the National Assembly records that disparity has continued to increase.

The centralisation of economic management has thus failed miserably to meet the objective of attaining ecnomic justice. It has failed to meet the constitutional obligation to remove economic disparity between region and region. Instead, therefore, of persisting in centralized economic management which has failed to deliver the goods, we should adopt a bold and imaginative solution to this challenging problem The Federal Scheme at the Six-point programme, is in my view, such a bold and imaginative solution.

It is in essence a scheme for entrusting the responsbitity for economic managment to the regions. The proposal is born of the conviction that this alone can effectively meet the problems, which centralised economic management has failed to overcome. This unique geography of the country, resulting in lack of labour mobility, as well as the different levels of development obtaining in the different regions, requires that economic management should not be centralised.

The specific proposal embodied in the Six—point Programme with regard to currency, foreign trade, foreign exchange earnings and taxation are all designed to give full responsibility for economic management to the regional Governments. The proposals with regard to currency are designed to prevent flight of capital and to secure control over monetary policy. The proposals regarding foreign trade and foreign exchange are desigened to ensure that the resources of a region are available to that region and to ensure it to obtain the maximum amount of foreign exchange resources for development purposes,. The proposal regarding taxation is designed to ensure control by the regional governments over fiscal policy, without in any way depriving the Federal Government of its revenue requirements.

The substance of these proposals are as follows :

(a) With regard to currency, measures should he adopted to prevent flight of capital from one region to another and to secure control over monetary policy by the regional governments. This can be done by adoption of two currencies or by having one currency with a separate Reserve Bank being set up in each region, to control monetary policy, with the State Bank retaining control over certain defined matters. Subject to the above arrangements, Currency would be a Federal subject.

(b) With regard to foreign trade and aid, the regional Governments should have power to negotiate trade and aid, within the frame work of the foreign policy ofthe country, which shall be the responsibility of the Federal Ministry of Foreign Affairs.

(c) The foreign exchange earnings of each region should be maintained in an account in each Regional Reserve Bank and be under the control of the regional Government; the Federal requirements from the two regional accounts on the basis of an agreed ratio.

(d) With regard to taxation., it is proposed that the power of lax levy and collection should be left to the regional Governments, but the Federal Government should be empowered to realise its revenue requirements from levies on the regional Governments. It should be clearly understood that it is not at all eontemplted that the Federal Government be left at the mercy of the regional.

Governments for its revenue needs.

I would emphasize that there would be no difficulty in devising appropriate constitutional provisions whereby the Federal Government's revenue requirements could be met, consistently with the objective of ensuring control over fiscal policy by the regional Governments. The scheme also envisages that there would be just representation on a population basis of persons from each part of Pakistan in all Federal services, including Defence Services.

If these principles are accepted, the detailed provisions can be worked out by a Committee consisting of experts, to be designated by both parties.

This scheme holds enormous promise of removing the canker of economic injustice from the body politic of Pakistan while at the same time removing the mistrust and frustration which centralised economic management has fostere over the years. I am confident that the people of West Pakistan would give their whole-hearted support to this scheme.

I urge the participants in this Conference to come forward with open minds and with large hearts, in spitit of fraternity and national solidarity, to adopt the Federal Scheme presented above, as the only means of overcoming what has been one of the most fomiidable problems conforming the country, i.e., that of the attainment of economic justice. No source had fed the current crisis more than the sense of economic injustice. Let us remove it; let us tackle problems at their source. Any attempt to avoid coming to grips with these basic problems will jeopardise our very survival.

 

Neither Almighty Allah nor history will forgive us if at this time of national crisis we fail to rise to the occasion to adopt bold solutions in order to restore the fromidable problems which have created a national crisis. This is a great opportunity, and one which may not pcsent itself again, to face our national problems squarely. We must, Therefore, strain every nerve to agree upon and implement the required solutions. Let us strive together to lift our beloved Pakistan out of the tragic situation in which she is placed, and to lay the constitutional foundations for a real, living, Federal Parliamentary Democracy, which will secure for the people of Pakistan full political economic and social justice. Only thus can a strong and united Pakistan face the future with hope and confidence.

The 10th March, 1969.                               PAKISTAN ZINDABAD.

১০ই মার্চ অনুষ্ঠিত মুলতবী গোল টেবিল বৈঠকে ৮ দলীয় ডেমোক্রেটিক এ্যাকশন কমিটির আহবায়ক নওয়াবজাদা নাসরুল্লাহ খান কমিটির পক্ষ হইতে দুইটি দাবী উত্থাপন করেন: (১) আঞ্চলিক স্বায়ত্বশাসনসহ ফেডারেল পার্লামেন্টারী পদ্ধতি সরকার; (২) প্রাপ্ত বয়স্কদের প্রত্যক্ষ ভোটে আইন পরিষদ নির্বাচন। ১০ই মার্চ হইতে ১৩ই মার্চ পর্যন্ত রাওয়ালপিন্ডিতে প্রেসিডেন্ট গেষ্ট হাউসে গোল টেবিল বৈঠক চলে এবং ১৩ই মার্চ গোল টেবিল বৈঠকের সমাপ্তি অধিবেশনে প্রেসিডেন্ট আইউব খান নিম্নবর্ণিত দুইটি দাবী গ্রহণ করেন:
(১)    প্রাপ্ত বয়স্কদের ভোটে জনপ্রতিনিধিদের নির্বাচন এবং (২) ফেডারেল পার্লামেন্টারী সরকার পদ্ধতি প্রবর্তন।
(২)    
    ডেমোক্রেটিক এ্যাকশন কমিটির সভায় প্রেসিডেন্ট আইউব খানের এওয়ার্ড বা রায় বিবেচনার পর কমিটির লক্ষ্য অর্জিত হওয়ার প্রেক্ষিতে ডেমোক্রেটিক এ্যাকশন কমিটির বিলুপ্তি ঘোষণা করা হয়। উল্লেখ্য যে, পাকিস্তান আওয়ামী লীগের (৬ দফা) সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান পূর্বাহ্নেই ডেমোক্রেটিক এ্যাকশন কমিটির সহিত সম্পর্ক ছিন্ন করিয়াছিলেন এবং পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়অমী পার্টির (মস্কো) প্রতিনিধি ডেমোক্রেটিক এ্যাকশন কমিটির সভায় যোগদান করেন নাই।

বৈঠকের পর এয়ার মার্শাল আসগর খান একই দিন ১৩ই মার্চ (১৯৬৯) রাওয়ালপিন্ডিতে আহূত সাংবাদিক সম্মেলনে জাস্টিস পার্টি নামে স্বীয় রাজনৈতিক দল গঠনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। ১২ই নভেম্বর (১৯৬৮) জুলফিকার আলী ভুট্টোর গ্রেফতারের পর আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণকল্পে অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল আসগর খান ১৭ই নভেম্বর (১৯৬৮) হইতে রাজনীতিতে অবতরণ করেন। আগেই উল্লেখ করিয়াছি যে, ৭ই নভেম্বর (১৯৬৮) রাওয়ালপিন্ডিতে ছাত্র-পুলিশ সংঘর্ষে ছাত্রদের মৃত্যুতে পশ্চিম পাকিস্তানে আন্দোলন দানা বাঁধিয়া উঠে; এবং ইহারই ক্রমব্যাপ্তি সমগ্র পশ্চিম পাকিস্তানকে গ্রাস করে।
    শেখ মুজিবুর রহমান রাওয়ালপিন্ডি গোল টেবিল বৈঠকে অংশগ্রহণের পর ১৪ই মার্চ ঢাকা বিমানবন্দরে অবতরণ করিলে জনতা তাঁহাকে বীরোচিত সম্বর্ধনা দান করে। বিমান-বন্দরে তিনি ঘোষণা করেন যে, পূর্ব পাকিস্তানী নেতৃবৃন্দ সমর্থন করিলে প্রেসিডেন্ট আইউব আঞ্চলিক স্বায়ত্বশাসনসহ পূর্ব পাকিস্তানের দাবী মানিতে বাধ্য হইতেন। শেখ সাহেব আরো মন্তব্য করেন যে, সর্বজনাব হামিদুল হক চৌধুরী, মাহমুদ আলী, ফরিদ আহমদ ও আবদুস সালাম খান অদ্যবধি বিগত ২২ বৎসর যাবৎ একই খেলায় মাতিয়া আছেন। অসামঞ্জন্যপূর্ণ ক্রিয়াকলাপের প্রেক্ষিতে মওলানা ভাসানীর রাজনীতি হইতে অবসর গ্রহণ করা বিধেয় বলিয়াও তিনি মন্তব্য করেন। ১১ দফা আন্দোলন পরিচালনাকারী সর্বদলীয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ নেতৃত্ব শেখ মুজিবুর রহমানকে সমর্থন করিত এবং তাহাদেরই প্রত্যক্ষ প্রয়াসের ফলেই শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানে একচ্ছত্র নেতার মর্যাদা পান। প্রসঙ্গত ইহাও অনস্বীকার্য যে, ঘটনার আবর্তনে সমগ্র বাংগালী জনতাই শেখ সাহেবকে বিনা প্রশ্নে নেতারূপে বরণ করিয়াছিল। অতএব ব্যক্তি-আক্রোশ মিটাইবার মতলবে বিমান বন্দরে লক্ষ জনতার সামনে উরোক্ত নেতাদের নাম প্রকাশ তাঁহার আদৌ নেতাসুলভ কাজ হয় নাই। ইহা প্রকারান্তরে উপরোক্ত নেতাদের বিরুদ্ধে জনতাকে উস্কাইয়া দেওয়অ ছাড়া আর কিছুই ছিল না।
    শেখ মুজিবুর রহমানের ঢাকা বিমান বন্দরের বতৃতার ফলে গভর্নও পদ হইতে মোনায়েম খানের অপসারণ ঘটে। বোধহয় ঐ কারণেই প্রেসিডেন্ট আইউব খান প্রফেসর নূরুল হুদাকে ২১মে মার্চ গভর্নও পদে নিয়োগ করেন এবং জনাব হুদা ২৩শে মার্চ (১৯৬৯) তারিখে গভর্নর হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। উল্লেখ্য যে, ইতিপূর্বে ১৫ই মার্চ প্রেসিযেন্ট আইউব খান জেনারেল মুসার স্থলে জনাব ইউসুফ হারুনকে পশ্চিম পাকিস্তানের গভর্নর পদে নিযুক্ত করিয়াছিলেন।
    বলা নি®প্রয়োজন যে, ইতিমধ্যে দেশের এবং সমাজ জীবনের সর্বত্র জ্বালাও, পোড়াও, ঘেড়াও আন্দোলন শুরু হইয়া গিয়াছিল এবং হত্যা, ধর্ষণ, অগিনসংযোগ, ধর্মঘট পর্যবসিত হইয়াছিল নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। প্রশাসনে আইন-শৃঙ্খলা বলিয়া কিছুই ছিল না; এমন কি দেশে কোন সরকার আছে বলিয়াও মনে হইত না। বস্তুতঃ সেই সময়ে এইভাবেই ক্রমে ক্রমে উচ্ছৃংখলতা সমাজ জীবনের একমাত্র নিয়ামক শক্তি হইয়া পড়ে; জীবন মূণ্যবোধ দ্রুত ধ্বসের সম্মুখীন হয়; শান্তিপূর্ণ নাগরিক-জীবনযাপন প্রচেষ্টা পরিণত হয় বাতুলতায়। সেক্রেটারিয়েটে হরতাল, শ্রমিকদের হরতাল, সরকারী বিভিন্ন বিভাগে হরতাল, শিক্ষক-ছাত্র হরতাল, শিল্প কারখানায় হরতাল, ট্রেনে, বাসে বিনা ঠিকিটে ভ্রমন, আবার অসহিষ্ণু, দাংগা-হাংগামায় পারদর্শী রাজনৈতিক কর্মী কর্তৃক বিপক্ষীয় দলীয় নেতা ও কর্মীদের উপর নগ্ন হামলা- ইত্যাদি অবাধে চলিতে থাকে। ১৬ই মার্চ পাঞ্জাব প্রদেশের অন্তর্গত শাহীওয়াল রেলওয়ে ষ্টেশনে অপেক্ষারত তেজগাঁম ট্রেনে ভ্রমনকালে মওলানা ভাসানীর উপর হামলা চালান হয়। ২৩শে মার্চ (১৯৬৯) ভোরবেলা ঢাকার লালমাটিয়ার নিজ বাড়ীর নিকট হইতে আওয়ামী লীগ কর্মীবৃন্দ কর্তৃক স্ত্রী, কন্যার চোখের সামনে তাজীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের নেতা মাহমুদ আলীবে জোরপূর্বক অপহরণ করিয়া ধানমণ্ডি আবাসিক এলাকার ১৯ নং সড়কে অবস্থিত এক ষ্টুডিওতে আটক করা হয় এবং শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে কিছু বলিবে না, তাহাকে দিয়া এক অংগীকারপত্রেও বলপূর্বক সহি করানো হয়। এইসব ঘটনায় আমার মতো আন্দোলনমুখী মানুষেরও স্মায়ুমন্ডলী ভীষণভাবে পীড়িত হইতে থাকে। বস্তুতঃ যে রাজনীতিবিদ তথা রাজনৈতিক দল পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয়; ক্ষমতাই মুখ্য। ক্ষমতার জন্যই তাহাদের আদর্শের বুলি; নীতি ও আদর্শের জন্য ক্ষমতা নয়।

আইউবের পদত্যাগ
    এমনি উচ্ছৃ্খংল সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক পরিস্থিতিতে শান্তিপূর্ণ সভ্য জীবনযাপন অসম্ভব হইয়া উঠায় জেনারেল আইউব খান দেশব্যাপী সামরিক শাসন জারি করিবার মনস্থ করেন। কিন্তু তদানীন্তন সেনাবাহিনীর প্রধান ইয়াহিয়া খান তাঁহাকে স্পষ্ট ভাষায় জানান যে, সামরিক শাসন জারি করিতে হইলে, তাহা করিবে সেনাবাহিনী। জেনারেল ইয়াহিয়া খানের এই বক্তব্যের প্রচ্ছন্ন ইংগিত কি, তা আইউব বুঝিতে পারিলেন। তাই জেনারেল ইয়াহিয়া খানের ক্ষমতা লিপ্সা মিটাইবার প্রয়োজনে ক্ষমতা হস্তান্তরের অপরিহার্যতায় প্রেসিডেন্ট ফিল্ড মার্শাল আইউব খান ২৪শে মার্চ (১৯৬৯) তারিখে নিম্নলিখিত পত্রে সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান জেনারেল ইয়াহিয়া খানকে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বভার প্রহণ করিবার অনুরোধ জানান:

President's House,

Rawalpindi, 24th March. 1969

My dear General Yahhya,

It is with profound regret that I have come to the conclusion that all civil administration & constituttional authority in the country have become ineffective. lf the situation continues to deteriorate at the present alarming rate all economy, life, indeed the civilised existence will become impossible.

I am left with no option but to step aside & leave it to the Defence Forces of Pakistan which today represent the only effective & legal instrument to take full control of the affairs of this country. They are by the grace of God in a position to retrieve the situation and to save the country from utter chaos and total destruction. They alone can restore sanity and put the country back on the road to progress in a civil and constitutional manner.

Restoration and maintenance of full democracy according to the fundamental principles of our faith and the needs of our people must remain our ultimate goal. In that lies the salvation of our people who are blessed with the highest qualities of dedication and vision and who are destined to play a glorious role in the world.

It is most tragic that while we were well on our way to happy and prosperous future, we plunged into an abyss of senseless agitation. Whatever name may have been used to glorify it, the time will show that this turmoil was deliberately created by well tutored and well backed elements. They made it impossible for the government to maintain any semblance of law and order or to protect the civil liberities, life & property of the people.

Every single instrument of administration and every medium of expression of saner public opinion was subjected to inhuman pressure. Dedicated but defenceless government functionaries were subjected to ruthless public criticism or blackmail. The result is that social & ethical norms have been destroyed & instruments of Govt. have become inoperative & ineffective.

The economic life of the country has all but collapsed. Workers and labourers are being incited and urged to commit acts of lawlessness and brutality. While demands of higher wages. & amenities are being extracted under threat of violence, production is going down. There has been serious fall in exports and I am afraid the country may soon find itself in the grip of serious inflation.

All this is the result of the reckless conduct of those who acting under the cover of a mass movement struck blow at the very roots of the country i during the last few months. The pity is that a large number of innocent but gullible people become victims of their evil design.

1 have served my people to the best of my ability under all circumstances. Mistakes there must have been but what has been achieved and accomplished is not negligible. There are some who would like to undo all that I have done and even that which was done by the governtnent before Hit!. But the most tragic & heartrending thought is that there are elements at work which would like to undo even what the Quaid—E—Azam had done namely the creation of Pakistan.

I have exhausted all possible civil and constitutional means to resolve the present crisis. I offered to meet all those regarded as the leaders of the people. Many of them came to a conference recently but only after I had fulfilled all their preconditions. Some declined to come for reasons best known to them. I asked these people to evolve an agreed formula. They failed to do so inspite of days of deliberations. They finally agreed on two points and I accepted both of them. 1 then offered that the unagreed issues should be referred to the representatives of the people after they had been elected on the basis of direct adult franchise. My argument was that the delegates in the conference who had not been elected by the people could not arrogate to themselves the authority to decide all civil and constitutional issues including those on which even they are not agreeing among themselves.

I thought I would call the National Assembly to consider the two agreed points but it soon became obvious that this would be an exercise in futility. The members of the Assembly are no longer free agents & there is no likelihood of th agreed two points faithfully adopted. Indeed members are being threatened & compelled either to boycott the session or to move such amendments as would liquidate the central government, make the maintenance of the Aimed Forces impossible, divide the economy of the country and break up Pakistan into little bits and pieces. Calling the Assembly in such chaotic conditions can only aggravate the situation. I-low can any one deliberate coolly and dispassionately on fundamental problems under threat of instant violence?

It is your legal and constitutional responsibility to defend the country not only against extemal agression but also to save it from internal disorder and chaos. The nation expects you to discharge this responsibility to preserve the security and integrity of the country and to restore normal social, economic and administrative life. Let peace and happiness be borught back to this anguished land of l20 million people. I believe you have the capacity, patriotism, dedication and imagination to deal with the formidable problems facing the country. You are the leader of a force which enjoys the respect and admiration of the whole world. Your colleagues in the Pakistan Air Force and in the Pakistan Navy——many are men of honour and know that you will always have their full support together the Armed Porces of Pakistan must save Pakistan from disintegration.

1 should be grateful if you would convey to every soldier, sailor & airman that I shall always be proud of having been associated with them as their supreme Commander.

They must know in this grave hour. they have to act as the custodians of Pakistan. Their conduct and actions must be inspired by the principles of Islam and by the conviction that they are serving the interests of their people.

lt has been a great honour to have served the valiant and inspired people ol` Pakistan for so long a period. May God guide them to move towards greater prosperity and glory.

I must also record my great appreciation of your unswerving loyalty. I know that patriotism has been a constant source of inspiration for you all your life. I pray for your success and for the welfare and happiness of my people.

Khuda Haliz.

   Yours sincerly
Sd/- M. A. Khan

 

General A. M. Yahya Khan
H. Pk. H G. C-in-C Army ·
General Head Quarters

(অনুবাদ)
প্রেসিডেন্ট ভবন
রাওয়ালপিণ্ডি
২৪শে মার্চ, ১৯৬৯

প্রিয় জেনারেল ইয়াহিয়া,
     গভীর বেদনার সাথে আমি এই সিদ্ধান্তে উপনীত হইয়াছি যে, দেশে সমস্ত বেসামরিক প্রশাসন ও শাসনতান্ত্রিক কর্তৃত্ব কার্যকারিতা হারাইয়া ফেলিয়াছি। যদি বর্তমানের আশংকাজনক গতিতে অবস্থার অবনতি ঘটিতে থাকে তাহা হইলে সভ্যভাবে জীবন ধারণ অসম্ভব হইয়া পড়িবে।
     ক্ষমতা ত্যাগ করিয়া দেশরক্ষা বাহিনীর কাছে ক্ষমতা প্রত্যর্পণ করা ছাড়া আমার কোন বিকল্প নেই। বর্তমান সময়ে দেশের পূর্ণ কর্তৃত্ব গ্রহণের জন্য দেশরক্ষা বাহিনীই একমাত্র কার্যকর ও আইনানুগ প্রতিষ্ঠান। খোদা চাহেত অবস্থার পরিবর্তন সাধনপূর্বক পরিপূর্ণ বিশৃঙ্খলা ও ধ্বংসের হাত হইতে দেশকে রক্ষা করিবার ক্ষমতা তাহাদের রহিয়াছে। একমাত্র তাহারাই দেশে সুস্থতা ফিরাইয়া আনিতে পারে এবং বেসামরিক ও শাসনতান্ত্রিক পদ্ধতিতে দেশকে অগ্রগতির পথে ফিরাইয়া নিতে পারে।
আমাদের বিশ্বাসের নীতিমালা এবং আমাদের জনগণের প্রয়োজন মোতাবেক পূর্ণ গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং ইহা বজায় রাখাই আমাদের চূড়ান্ত লক্ষ্য। ইহার মধ্যেই আমাদের জনগণের মুক্তি নিহিত। আত্ম্যোৎসর্গের শ্রেষ্ঠতম গুণাবলীসমৃদ্ধ আমাদের জনগণের পৃথিবীতে একটি গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রহিয়াছে।
      ইহা অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, যখন আমরা সুখী ও সমৃদ্ধশালী ভবিষ্যতের পথে অগ্রসর হইতেছিলাম তখনই কান্ডজ্ঞানহীন বিক্ষোভের শিকারে পরিণত হই। ইহাকে গৌরবাম্বিত করিবার জন্য যে নামই ব্যবহার করা হইয়া থাকুক না কেন, সময়ে প্রমাণিত হইবে যে, এই বিক্ষোভ ইচ্ছাকৃতভাবে সেই সমস্ত ব্যক্তিদের দ্বারা সৃষ্ট হইয়াছে যাহাদিগকে বিপুলভাবে প্রণোদিত করা হইয়াছে এবং মদদ যোগান হইয়াছে। আইন ও শৃঙ্খলার নূন্যতম চি... বজায় রাখা কিংবা নাগরিক স্বাধীনতা এবং জনগণের জীবন ও সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণ তাহারা অসম্ভব করিয়া তুলিয়াছে। প্রশাসনের প্রতিটি অঙ্গ এবং সুস্থ জনমত প্রকাশের প্রতিটি মাধ্যমের উপর অমানবিক চাপ প্রয়োগ করা হয়। ত্যাগী মনোভাবাপন্ন অথচ নিরাপত্তাহীন সরকারী প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠানসমূহ জনগণের ক্রুর সমালোচনা অথবা ব্ল্যাকমেইলের শিকারে পরিণত হয়। ফলে সামাজিক ও নৈতিক মূল্যবোধগুলি বিনষ্ট হইয়া পড়ে এবং সরকারী ুঙন্ত্র কার্যকারিতা হারাইয়া ফেলে। দেশের অর্থনৈতিক জীবন সম্পূর্ণভাবে ধ্বংসপ্রাপ্ত হইয়া গিয়াছে। আইন-বহির্ভূত এবং নৃশংস কাজ করিবার জন্য কর্মচারী ও শ্রমিকদিগকে উত্তেজিত করা হইতেছে। একদিকে সন্ত্রাসের হুমকির মুখে অধিক পারিশ্রমিক, বেতন ও সুযোগ সুবিধা আদায় করা হইতেছে অন্যদিকে উৎপাদন হ্রাস পাইতেছে। রফতানী ক্ষেত্রে মারাত্মত অবনতি ঘটিয়াছে এবং আমার আশংকা অতিসত্ত্বরই দেশ-মারাত্মক মুদ্রাস্ফীতির কবলে নিপতিত হইবে।
      এইসব হইতেছে ঐ সমস্ত ব্যক্তিদের নৈরাজ্যমূলক আচরণের ফল যাহারা গত কয়েক মাস ধরিয়া গণআন্দোলনের নামে দেশের ভিত্তিমূলে একটির পর একটি আঘাত হানিতেছে। দুঃখের বিষয়, বিপুল সংখ্যক নির্দোশ লোক এই অসৎ পরিকল্পনার শিকারে পরিণত হইয়াছে।
     সকল অবস্থার মধ্যে আমি আমার ক্ষমতা অনুযায়ী দেশবাসীর খেদমত করিয়াছি। অবশ্য যথেষ্ট ভুলভ্রান্তি রহিয়াছে কিন্তু যাহা অর্জন করা হইয়াছে তাহাও নগণ্য নয়। এমন অনেকে আছেন যাহারা আমি যাহা করিয়াছি এমনকি পূর্বতন করকার যাহা করিয়াছে তাহাকে ব্যর্থ করিয়া দিতে চাহিবে। কিন্তু সবচাইতে দুঃখজনক ও হৃদয়বিদারক চিন্তা হইল যে, এমন অনেকে এখন ক্রিয়াশীল রহিয়াছে যাহারা কায়েদে আযমের অবদান অর্থাৎ পাকিস্তান সৃষ্টিকেও ব্যর্থ করিয়া দিতে চাহিবে।
      বর্তমান সংকট নিরসনের জন্য আমি সকল বেসামরিক ও শাসনত্রান্ত্রিক পন্থা প্রয়োগ করিয়াছি। যাহারা জনগণের নেতা হিসাবে পরিচিত তাঁহাদের সহিত মিলিত হইবার প্রস্তাব দিয়াছি। সম্প্রতি তাঁহাদের সকল পূর্বশর্ত পূরণ করিয়াছিলাম। কয়েকজন উক্ত কন্সফারেন্সে যোগ দিতে অস্বীকার করিয়াছেন; এই অস্বকৃতির কারণ তাঁহাদেরই ভাল জানা। একটি সর্বস্বীকৃত ফর্মূলা উদ্ভাবন করিবার জন্য আমি তাঁহাদিগকে বলিয়াছিলাম। কয়েকদিনের আলোচনা সত্ত্বেও তাঁহারা উহা করিতে পারেন নাই। শেষ পর্যন্ত তাঁহারা দুইটি বিষয়ে একমত হইয়াছিলেন এবং আমি ঐ দুইটি বিষয়ই গ্রহণ করিয়াছিলাম। তারপরে আমি প্রস্তাব দিয়েছিলাম, যে সমস্ত বিষয়ে মতৈক্য হয় নাই সেইগুলি প্রাপ্ত বয়স্কদের প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে যখন জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচিত হইয়া আসিবেন তখন তাঁহাদের বিবেচনার জন্য পেশ করা হইবে। আমার যুক্তি ছিল- এই কনফারেন্সে উপস্থিত প্রতিনিধিবৃন্দ যাঁহারা জনগণ কর্তৃক নির্বাচিত হন নাই তাঁহারা সকল বেসামরিক ও শাসনত্রান্ত্রিক বিষয়  নিজেদের মধ্যে যে সমস্ত বিষয়ে মতৈক্য প্রতিষ্ঠিত হয় নাই সেইগুলির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার দাবী করিতে পারেন না।
    যে দুইটি বিষয়ে মতৈক্য প্রতিষ্ঠিত হইয়াছে সেইগুলি বিবেচনার জন্য জাতীয় পরিষদ আহবান করিবার কথা আমি চিন্তা করিয়াছিলাম কিন্তু ইহা স্পষ্ট হইয়া উঠিল যে, ইহা নিরর্থক প্রচেষ্টা। পরিষদের সদস্যরা আর স্বাধীন প্রতিনিধি নন এবং যে দুইটি বিষয়ে মতৈক্য প্রতিষ্ঠিত হইয়াছে সেইগুলি বিশ্বস্ততার সহিত হয় এমন কোন সম্ভাবনা নাই। প্রকৃতপক্ষে পরিষদ সদস্যদেরকে এই মর্মে হুমকি প্রদানেও বাধ্য করা হইতেছে যাহাতে তাঁহারা হয় অধিবেশন বয়কট করেন অথবা এমন সংশোধনী প্রস্তাব আনয়ন করেন যাহাতে কেন্দ্রীয় সরকার বিলুপ্ত হইয়া যায়, সশস্ত্র বাহিনীর রক্ষণাবেক্ষণ অসম্ভব হইয়া পড়ে, দেশের অর্থনীতি দ্বিধাবিভক্ত হইয়া পড়ে এবং পাকিস্তান ছোট ছোট খন্ডে বিভিক্ত হইয়া পড়ে। এমন একটি বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে জাতীয় পরিষদ আহবান করিবার অর্থই হইতেছে পরিস্থিতিকে আরও সংকটাপন্ন করিয়া তোলা।
    শুধু বিদেশী আগ্রাসনই নয় বরং আভ্যন্তরীণ গোলযোগ ও বিশৃঙ্খলা হইতে দেশকে রক্ষা করিবার আইনগত ও শাসনতান্ত্রিক দায়িত্ব আপনার। জাতি আশা করে, দেশের নিরাপত্তা ও অখন্ডতা বজায় রাখা এবং সামাজিক, অর্থনৈতিক ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে স্বভাবিক অবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আপনি এই দায়িত্ব পালন করিবেন। ১২ কোটি মানুষের এই বিক্ষুব্ধ দেশে শান্তি ও সুখ ফিরিয়া আসুক। আমি বিশ্বাস করি, দেশের বর্তমান কঠিন সমস্যা মোকাকেলা করিবার মতো ক্ষমতা, দেশপ্রেম, ত্যাগী মনোভাব ও প্রজ্ঞা আপনার রহিয়াছে। আপনি এমন এক বাহিনীর নেতা যার সমগ্র বিশ্বে সম্মান রহিয়াছে। পাকিস্তান বিমান বাহিনী ও নৌ-বাহিনীর আপনার সহকর্মীদের অনেকেই সম্মানিত ব্যক্তি এবং আমি জানি, আপনি সর্ব সময়েই তাঁহাদের সমর্থন পাইবেন। পাকিস্তান সশস্ত্র বাহিনীকে অবশ্যই বিচ্ছিন্নতার হাত হইতে পাকিস্তানকে রক্ষা করিতে হইবে।
    প্রতিটি সৈনিক, নাবিক ও বৈমানিকের নিকট আপনি এই কথা পৌঁছাইয়া দিবেন যে, তাহাদের সুপ্রীম কমান্ডার হিসাবে তাহাদের সহিত সম্পর্কিত হওয়াতে আমি গর্বিত; সেই জন্য আমি আপনার নিকট কৃতজ্ঞ থাকিব।
    তাহাদের জানা উচিত, বর্তমান সংকটাপন্ন মুহূর্তে তাহাদিগকে পাকিস্তানের রক্ষক হিসাবে কাজ করিতে হইবে। তাহাদের আচরন ও কাজ ইসলামের নীতিমালা ও জনঘনের স্বার্থ রক্ষার মনোবৃত্তি দ্বারা অনুপ্রাণিত হইবে। দীর্ঘকাল ধরিয়া পাকিস্তানের সাহসী ও অনুপ্রাণিত জনগণের খেদমত করিতে পারিয়া আমি পরম সম্মানিত বোধ করিতেছি। আল্লাহ তাঁহাদিগকে অধিকতর অগ্রগতি ও গৌরবের পথে পরিচালিত করুন।
    আপনার দ্বিধাহীন আনুগত্যের কথাও আমি পরম শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করিতেছি। আমি জানি, আপনার সমগ্র জীবনে দেশপ্রেমই হইতেছে সর্বময় প্রেরণার উৎস। আমি আপনার সাফল্য এবং আমার দেশবাসীর কল্যাণ ও সুখের জন্য দোয়া করি। খোদা হাফেজ।

আপনার বিশ্বস্ত
স্বা/-এম. এ খান

ইয়াহিয়ার আগমন
    ফিল্ড মার্শাল আইউব খানের পত্র প্রাপ্তির পর সেনাবহিনী প্রধান জেনারেল ইয়াহিয়া খান ২৫শে মার্চ (১৯৬৯) সন্ধ্যা ৭-১৫ মিনিটে সমগ্র দেশে সামরিক আইন জারি করেন; সংবিধান বাতিল করেন, জাতীয় পরিষদ ও প্রাদেশিক পরিষদ বিলুপ্ত ঘোষণা করেন, গভর্নর ও মন্ত্রীদের স্ব-স্ব পদ হইতে অপসারণ করেন এবং সমগ্র দেশকে দুইট সামরিক আইন অঞ্চলে বিভক্ত করিয়া পশ্চিম পাকিস্তানকে মার্শাল ল জোন ‘এ’ ও পূর্ব পাকিস্তানকে মার্শাল ল জোন ‘বি’ করা হয়। লেঃ জেঃ আতিকুর রহমান ও মেজর জেনারেল মোজাফফর উদ্দিনকে যথাক্রমে জোন ‘এ’ ও জোন ‘বি’-এর সামরিক শাসনকর্তা নিযুক্ত করা হয়।
    জেনারেল ইয়াহিয়া ২৬শে মার্চ জাতির উদ্দেশে প্রদত্ত ভাষণে দেশবাসীকে প্রাপ্ত বয়স্কদের প্রত্যক্ষ খোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিবর্গ কর্তৃক সংবিধান প্রণয়নের প্রতিশ্রুতি দেন।
    স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠে, ফিল্ড মার্শাল আইউব খান ইস্তফা দিলেন কেন এবং সাংবিধানিক পথে বেসামরিক সরকারের নিকট ক্ষমতা হস্তান্তর করিলেন না কেন? আমার স্পষ্ট মত, প্রেসিডেন্ট আইউব খানের ক্ষমতার মূল উৎস (পাওয়ার বেস) ছিল সেনাবহিনীর ছাউনী, জনতা নয়। অতএব উচ্ছাভিলাষী সামরিক জেনারেলরা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা সত্যিকারের জনপ্রতিনিধিদের নিকট হস্তান্তরের ঘোর বিরোধী ছিলেন। ক্ষমতাপিপাসু উচ্ছপদস্থ সামরিক কর্মচারীদের পচন্ড চাপের মুখে প্রেসিডেন্ট আইউব খানকে ক্ষমতা ত্যাগ করিতে হয়; এবং সামরিক জান্তার নিকট ক্ষমতা হস্তান্তর করিতে হয়্ আমার আরও অভিমত, আইউবের ক্ষমতা হস্তান্তরের পশ্চাতে নিম্নলিখিত কার্যকারণসমূহ সক্রিয় ছিল। যথা-
    (১) জাতীয়, আন্তর্জাতিক মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী বংশবদ, (২) ক্ষমতাভিলাষী সামরিক-বেসামরিক উচ্ছপদস্থ কর্মচারী, (৩) বিদেশী অর্থপুষ্ট ক্ষমতাপিপাসু রাজনীতিবিদ, (৪) পরস্পর বিবাদমার ক্ষমতাপিপাসু রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং (৫) দিল্লীচক্রের বংশবদ ও অখন্ড ভারত সমর্থকবৃন্দের ষড়যন্ত্রমূলক কার্যকলাপ। উহারাই প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রভুত্বব্যঞ্জক আইউব সরকারের জুলুম ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে দেশবাসীর পুঞ্জীভূত রোষের পূর্ণ সুযোগ গ্রহণ করিয়া সমগ্র দেশে অরাজকতার রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করে। প্রেসিডেন্ট আইউব খান ব্যক্তি শাসন প্রতিষ্ঠায় ব্রতী না হইয়া যদি জনগণ কর্তৃক ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিত্বশীল সংসদ ও সরকার গঠনে প্রয়াসী হইতেন, তাহা হইলে ঘটনাপ্রবাগ নিঃসন্দেহে ভিন্ন হইতে পারিত। অন্ততঃ লেলিহান অগ্নিশিখায় দেশ ও জাতিকে নিক্ষেপ করিয়া আকস্মাৎ তাঁহাকে বিদায় নিতে হইত না, যেই লেলিহান শিখায় পাকিস্তানের অখন্ডতা ও সংহতি জ্বলিয়া পুড়িয়া ছাই হইয়া গেল, সেই লেলিহান শিখায় দেশ ও জাতিকে তেমনি মর্মান্তিক পরিণতির সম্মুখীন হইতে হইত না।
    ৩১শে মার্চ প্রক্লামেশন (ঘোষণা) অনুযায়ী প্রধান সামরিক আইন শাসনকর্তা জেনারেল আগা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া খান ২৫শে মার্চ সন্ধা ৭-১৫ মিঃ হইতে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্টের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। যতটুকু মনে পড়ে, জেনারেল ইয়াহিয়া ১৯৬৮ সালে ব্যাংককে সংবাদিকদের প্রশ্নোত্তরে এক অসতর্ক মুহ’র্তে নিজেকে পাকিস্তানের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট বলিয়া ঘোষণা করিয়াছিলেন এবং ঘটনাপ্রবাহে এইভাবেই তিনি সেই বহু আকাঙ্খিত পদে অসীন হন। এই সময়ে পরিবর্তিত নূতন রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আমরা একটি নূতন রাজনৈতিক দল গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। গণতন্ত্র হইল এই নূতন রাজনৈতিক দলটির জীবন দর্শন বা কর্মপদ্ধতি। স্বচ্ছ রাজনীতিতে বিশ্বাসী এবং ডান, বাম ও ফ্যাসিবাদ সম্পর্কে সচেতন এইরূপ রাজনীতিকদের এক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০শে জুলাই (১৯৬৯) ইডেন হোটেলে। জনাব খয়রাত হোসেনের সভাপতিত্বে এই সম্মেলনেই আমরা ন্যাশনাল প্রোগ্রেসিভ লীগ গঠন করি।
    ২৮শে নভেম্বর জাতির উদ্দেশে প্রদত্ত ভাষণে জেনারেল ইয়াহিয়া খান কতিপয় সাংবিধানিক সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন যথা- (১) পশ্চিম পাকিস্তান প্রদেশ বিলুপ্তি এবং তদস্থলে সাবেক অবলুপ্ত প্রদেশগুলি পুনর্বহাল, (২) এক ব্যক্তি এক ভোট ভিত্তিতে জনসংখ্যানুপাতে নির্বাচন অর্থাৎ সংখ্যাসাম্যনীতির অবলুপ্তি, (৩) ফেডারেল পার্লামেন্টারী গভর্নমেন্ট প্রতিষ্ঠা, (৪) নূতন নির্বাচিত গণপরিষদ কর্তৃক প্রথম বৈঠকের তারিখ হইতে ১২০ দিনের মধ্যে সংবিধান রচনা ও সংবিধান রচনার পর গণপরিষদের জাতীয় সংসদে রূপান্তর, (৪) ১৯৭০ সালের ১লা জানুয়ারী হইতে প্রকাশ্য রাজনৈতিক ক্রিয়াকলাপ, (৬) সংবিধান রচনা অবধি সামরিক আইন বলবৎ এবং (৭) ৫ই অক্টোবর (১৯৭০) জাতীয় পরিষদের নির্বাচন।
লিগাল ফ্রেম ওয়ার্ক
    ২৮শে মার্চ (১৯৭০) ইয়াহিয়া খান জাতির উদ্দেশে প্রদত্ত অপর এক ভাষণে ২২শে অক্টোবরের মধ্যে প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। তাহার এই বেতার ভাষণ মোতাবেক ২০শে মার্চ (১৯৭০) আইনগত কাঠামো আদেশ (LEGAL FRAME WORK ORDER)
প্রকাশিত হয়।
    আইনগত কাঠামো আদেশে জাতীয় পরিষদ সদস্য সংখ্যা জনসংখ্যাভিত্তিক নিম্নলিখিতভাবে নির্ধারিত হয়:

পূর্ব পাকিস্তান    সাধারণ আসন ১৬২     মহিলা আসন ৭
পাঞ্জাব    সাধারণ আসন ৮২    মহিলা আসন ৩
সিন্ধু    সাধারণ আসন ২৭    মহিলা আসন ১
বেলুচিস্তান    সাধারণ আসন ৪    মহিলা আসন ১
উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ    সাধারণ আসন ১৮    মহিলা আসন ১
কেন্দ্রীয় শাসিত উপজাতীয় এলাকা    সাধারণ আসন ৭    মহিলা আসন ০
সর্বমোট    ৩০০    ১৩

প্রাদেশিক পরিষদ        
পূর্ব পাকিস্তান    সাধারণ আসন ৩০০    মহিলা আসন ১০
পাঞ্জাব    সাধারণ আসন ১৮০    মহিলা আসন ৬
সিন্ধু    সাধারণ আসন ৬০    মহিলা আসন ২
বেলুচিস্তান    সাধারণ আসন ২০    মহিলা আসন ১
উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ    সাধারণ আসন ৪০    মহিলা আসন ২

    মহিলা সদস্যগণ স্ব-স্ব প্রদেশ হইতে নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ সদস্যবৃন্দ দ্বার, এবং প্রাদেশিক পরিষদে সংরক্ষিত মলিলা আসন প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য কর্তৃক নির্বাচিত হইবেন।
    নির্বাচিত জাতীয় পরিষদ ১২০ দিনের মধ্যে সংবিধান রচনায় ব্যর্থ হইলে অথবা জাতীয় পরিষদ কর্তৃক রচিত সংবিধান প্রেসিডেন্টের অথেনটিকেশন (Authentication) না পাইলে জাতীয় পরিষদ অবলুপ্ত বিবেচিত হইবে, তবে ১০০ দিনের মধ্যে সংবিধান রচনা করিতে সমর্থ হইলে এবং প্রেসিডেন্টের অথেনটিকেশন পাইলে জাতীয় পরিষদ পূর্ণ মেয়াদের জন্য কাজ করিবে।
আজগর খানের সহিত আলোচনা
    জাস্টিস পার্টি গঠন করিবার পর এয়ার মার্শাল আসগর খান পূর্ব পাকিস্তান সফরে আসেন এবং বিভিন্ন নেতার সহিত আলোচনা বৈঠকে মিলিত হন। জনাব আতাউর রহমান খানের সহিতও তাঁহার সামগ্রিক রাজনীতি সম্পর্কে প্রাথমিক আলোচনা হয়। সন্তোষজনক প্রাথমিক আলোচনার পর এয়ার মার্শাল আসগর খান আমাদিগকে লাহোর সফরে আমন্ত্রণ জানান। সেই আমন্ত্রণ মোতাবেক রাজনৈতিক আলোচনার উদ্দেশ্যে জনাব আতাউর রহমান খান, জনাব নূরুর রহমান ও আমি ৯ই মে লাহোর গমন করি। আমরা লাহোরে জনাব মনজার বশীর সাহেবের আতিথ্য গ্রহণ করি। কায়েদে আযম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ও অন্যান্য ভারত বিখ্যাত নেতৃবৃন্দও অতীতে ঐ বাড়ীতেই আতিথ্য গ্রহণ করিতেন।
    ১০ই মে জাস্সি পার্টি নেতৃবৃন্দের সহিত দীর্ঘ বৈঠকের প্রস্তুতি হিসাবে আমাদের চিন্তার সহিত পরিচয় করাইবার প্রয়াসে ৯ই মে দিবাগত রাত্রে এয়ার মার্শাল আসগর খান ও তাঁহার সহকর্মী বন্ধুবর্গের অবগতির জন্য আমাদের তৈরী খসড়া  " OUR APPROACH TO PAKISTAN’S POLITICAL PROBLEMS" শ্রদ্ধার সহিত তাঁহাদের হাতে দেই। ১০ই মের বৈঠকে ‘দুই অর্থনীতির রাষ্ট্র’  (TOW ECOMONY) সংক্রান্ত ধারণা ও সমাজতন্ত্র  (SOCIALISM) তাঁহারা গ্রহণ করিতে মোটেই সম্মত হন নাই। দীর্ঘ আলোচনায় ধারণা হইয়াছে, লাহোরের রাজসৈতিক আকাশ পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় অখন্ডতা ও সংহতির প্রশ্নে অত্যন্ত মেঘাচ্ছন্ন।
    লাহোর আলোচনা অসমাপ্ত রহিল। ১১ই মে লাহোর হইতে আমরা পেশোয়ার গমন করি। পেশোয়ারে জনাব আতাউর রহমান খান ও এয়ার মার্শাল আসগর খানের মধ্যে দ্বিতীয় দফা বৈঠক হয়। বৈঠকে জনাব নুরুল আমিন ও অন্যান্যের সহিত রাজনৈতিক একাত্মতা গড়িয়া তুলিবার জন্য এয়ার মার্শাল প্রস্তাব দেন।
    পেশোয়ারে উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সর্দার আবদুর রশিদ ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি নেতা খান আবদুল ওয়ালী খানের সহিতও রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে আমাদের মত-বিনিময় হয়।
    পেশোয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্কিওলজীর প্রফেসর ডঃ আহমদ হাসান দানী আমাদের সহিত আলোচনাকালে পাকিস্তান রাষ্ট্রের ভৌগোলিক অবস্থান ও বিচ্ছিন্নতা বনাম রাষ্ট্রীয় সংহতির আলোকপাত করিতে গিয়া মন্তব্য করেন যে, ইতিহাসের গতিতে পাকিস্তান শেষ পর্যন্ত দুইটি সার্বভৌম ও স্বাধীন রাষ্ট্রে পরিণত হইবে।
    সীমান্ত নেতা খান আবদুল ওয়ালী খানের সহিত বৈঠকেও ইহার একটি চমৎকার প্রতিধ্বনি শুনিতে পাই যে, যেমন পাঞ্জাব কুচক্রী মহলের স্বার্থে একদিন চারটি প্রদেশের বিলুপ্তি ঘটাইয়া এক ইউনিট অর্থাৎ পশ্চিম পাকিস্তান প্রদেশ গঠন করা হইয়াছিল, ঠিক তেমনি কোন কোন স্বার্থান্বেষী মহল পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করিবার প্রয়াসে দলিল থৈরী করিতেছে। ১৩ই মে পেশেঅয়ার হইতে রাওয়ালপিন্ডি পৌঁছি। রাওয়ালপিন্ডিতে নওয়অ-ই-ওয়াকত সম্পাদক হামিদ আখতারের নসহিত মতবিনিময় হয়। জাস্টিস পার্টি সদস্য অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার রাজা সকল রাজনৈতিক আলাপ-আলোচনার ইন্তেজাম করেন। তিনি বড় অতিথিপরায়ণ, বয়স ষাট, কিন্তু অত্যন্ত কর্মঠ।
    ১৪ই মে, সন্ধ্যা ৭-৩০ মিঃ পুনরায় লাহোর এবং ১৪ই মে লাহোর হইতে বিমানে করাচী পৌঁছি। ১৫ই হইতে ২০শে মে অবধি আমরা করাচী অবস্থান করি এবং করাচীতে আমরা জনাব হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী তনয়া মিসেস আখতার সোলায়মান; পাকিস্তান মুসলিম লীগ নেতা হাসান এ শেখ, পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির সাধারণ সম্পাদক আমজাদ আলী শাহ, ‘জিয়ে-সিন্দ’ আন্দোলনের নেতা ঝানু পার্লামেন্টারিয়ান জিএম সৈয়দ ও পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতা জুলফিকার আলী ভুট্টোর সহিত মত-বিনিময় করি। ১৭ই মে আমরা সিন্ধু প্রদেশের রাজধানী হায়দরাবাদ সফরে যাই এবং জনাব কেবি জাফরের আতিথ্য গ্রহণ করি।
    ২০শে মে জনাব জুলফিকার আলী ভুট্টোর সহিত জনাব আতাউর রহমান খান ও আমার তিন ঘন্টাব্যাপী রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংবিধানিক বিষয়ে আলাপ-আলোচনা হয়। দুই অর্থনীতি, সমাজতন্ত্র, দেশ রক্ষানীতি, এক ইউনিট বাতিল ও করাচী ফেডারেল এলাকা ঘোষলা প্রশ্নে আমাদের মধ্যে মোটামুটি ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়।
    আলোচনা প্রসঙ্গে জনাব ভুট্টো হইতে আমরা অবহিত হই যে, ১৯৬৯ সালের ১০ই মার্চ পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি প্রধান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর সহিত তাঁহার নিম্মোক্ত ত্রি-বিষয়ে সমঝোতা হইয়াছে :

১)    পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান স্বীকৃত দাবীর ভিত্তিতে জনগনের গণতন্ত্র পতিষ্ঠা;  
২)    পাকিস্তানের আদর্শের সহিত সামঞ্জস্য রক্ষা করিয়া সমাজতন্ত্র কায়েম এবং
৩)    সর্বপ্রকার বিদেশী স্বার্থ বিলুপ্তি, সর্বপ্রকার উপনিবেশবাদ, নয়া উপনিবেশবাদের বিরোধিতা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া চুক্তি সংস্থা, কেন্দ্রীয় চুক্তি সংস্থা ও সকল সামরিক চুক্তি হইতে সদস্যপদ প্রত্যাহার।

আলোচনায় ইহাও জানিতে পারি যে, মাওলানা ভাসানীর রাজনৈতিক কার্যকলাপের সহিত একমতহইতে না পারায় জনাব ভুট্টো উপরে বর্ণিত সমঝোতা সত্ত্বেও মওলানা ভাসানীর সহিত দূরত্ব বজায় রাখিবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিয়াছেন।
    করাচীতে প্রবাসী বাঙ্গালীদের সহিত আলোচনার জন্য আমি করাচীর ড্রিগ রোডে গমন করি। বাঙ্গালী প্রবাসীদের ধারণায় শেখ মুজিবর রহমানের ৬ দফা আন্দোলনে আমাদের শরীক হওয়া উচিত, ইহার অন্যথা করিবার অর্থ বাঙ্গালী স্বার্থে আঘাত হানা এবং পশ্চিম পাকিস্তানী কুচক্রী শাসক-শোষকের হাত প্রত্যক্ষ বা অপ্রত্যক্ষভাবে জোরদার করা।
    পক্ষান্তরে পশ্চিম পাকিস্তানবাসীর একটি মাত্র প্রশ্ন, পাকিস্তানের অখন্ডত্ব ও সংহতি বজায় থাকিবে তি থাকিবে না। অখণ্ডত্ব ও সংহতি বজায় রাখিবার খাতিরে তাহারা প্রচলিত রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও প্রশাসনিক পরিবর্তনের ঘোর বিরোধী; অর্থাৎ শোষণ-শাসনের যন্ত্র অবিকল থাকিবে। অন্য কথায় সমগ্র দেশের অর্থাৎ পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে বসবাসকারীদের যে মানসিক দূরত্ব সুষ্টি হইয়াছে, সেই বাস্তব সত্যকে অম্লানবদনে স্বীকৃতি দিয়া সমস্যা-সংকট নিরসনের জন্য কুসংস্কার বর্জিত বদ্ধমূল ধারনামুক্ত জ্ঞানালোকসম্পন্ন উচ্চ চিন্তা প্রণোদিত প্রজ্ঞা প্রদর্শনে পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিবিদরা পুরাপুরিভাবেই ব্যর্থ হইয়াছেন। ইহাই আমার তিক্ত ও দৃঢ় মত। বস্তুতঃ একই ভিটায় সমঝোতার সহিত দুই ভাইয়ের সহঅবস্থানের উচ্চ মন ও হৃদয় পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিবিদদের ছিল না।
    পশ্চিম পাকিস্তানে সমগ্র সফরই জাস্টিস পার্টির নেতৃবৃন্দ ও কর্মীবৃন্দের সতর্ক ও আন্তরিক তত্ত্বাবধানে সম্পন্ন হয়। করাচী জাস্টিস পার্টির চেয়ারম্যান মিসেস সাদী চমিরের আন্তরিকতা, অতিথিপরায়ণতা ও সেবা আমাদিগকে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন।
    এরপর এয়ার মার্শাল আসগর খানের নেতৃত্বে জাস্টিস পার্টির একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় আগমন করেন। হোটেল শাহবাগে অবস্থান করেন প্রাথমিক আলোচনার জন্য জনাব আতাউর রহমান খাঁনের নেতৃত্বে জনাব নুরুর রহমান, ইকবাল আনসারী খাঁন, ফেরদৌস আহমদ কোরেশী, আনিসুর রহমান ও আমি হোটেল শাহবাগে উক্ত প্রতিনিধি দলের সহিত বৈঠকে বসি। তাঁহাদের সম্মানে ১৪ই জুন হোটেল পূর্বাণীতে জনাব আতাউর রহমান খান এক নৈশভোজের আয়োজন বরেন। দুই নেতা এয়ার মার্শাল আসগর খাঁন ও আতাউর রহমান খান আমাদিগকে অর্থাৎ সর্বজনাব মোখলেছুজ্জামান খান, নুরুর রহমান ও আমি (পূর্ব পাকিস্তান) এবং আবু সৈয়দ আনোয়ার ও মঞ্জুর বশীর (পশ্চিম পাকিস্তান) কে আলোচনার জন্য মনোনীত করেন। তদানুযায়ী আমরা ২০শে জুন জনাব মোখলেছুজ্জামান খানের বাসবভনে মিলিত হই এবং জনাব আতাউর রহমান খানের সাত দফা ও ''Our approch to Pakistan’s political problems"- এ আমাদের লিখিত বক্তব্য পুংখানুপুখরূপে আলোচনা করি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমাদের সেই আলোচনা ফলপ্রসূ হয় নাই। পক্ষান্তরে আসগর খানের নহিত পি.ডি.এম নেতৃবৃন্দের মতৈক্য প্রতিষ্ঠা হওয়ায় তাহারা সম্মিলিতভাবে পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। সেপ্টেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত কনভেনশনে পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টি গঠিত হয়। অবশ্য রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ আসগর খান কনভেনশনের অব্যবহিত পরে নব গঠিত পি.ডি.পি হইতে পদত্যাগ করেন এবং এককভাবে পাকিস্তান তাহরিক-এ-ইসতেকলাল পার্টি গঠন করেন।
    দুঃখজনক হইলেও ইহা স্বীকার করিতে হয় যে, ভারত হইতে আগত অবাঙ্গালী মোহাজের শ্রেণী স্থানীয় বাসিন্দাদের সহিত একাত্ম হইতে পারে নাই। ফলে স্থানীয়দের সহিত সামাজিক, অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক, সাংস্কৃতিক ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে তাহাদের তিক্ততা এত বৃদ্ধি পায় যে, অবষেশে ঢাকায় বাংলা ভাষাভাষী ও উর্দু ভাষাভাষীদের মধ্যে দাঙ্গা বাঁধে। রক্তাক্ত দাঙ্গা বন্ধ করিবার মানসে আমরা, তাজউদ্দিন আহমদ (সাধারণ সম্পাদক, পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ), খন্দকার মোশতাক আহমদ (সহ-সভাপতি ঐ), (মোজাফফর আহমদ (সভাপতি, পূর্ব পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি), সৈয়দ আলতাফ হোসেন (সাধারণ সম্পাদক, ঐ), পীর হাবিবুর রহমান (ঐ, ন্যাপ), নুরুর রহমান (ন্যাশনাল প্রোগ্রেসিভ লীগ) ও আমি (ঐ), জনাব আতাউর রহমান খানের বাসভবনে ৩রা নভেম্বর এক সভায় মিলিত হই। সভা হইতে আমরা গভর্নমেন্ট হাউসে গমন করি এবং প্রাদেশিক গভর্নর রিয়ার এডমিরাল আহসানকে শান্তি বজায় রাখিবার জন্য প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহন করিতে অনুরোধ জানাই।
    উল্লেখ্য যে, এই বাঙ্গালী অবাঙ্গালী দাঙ্গার পিছনে ইন্ধন যোগাইয়াছিল সামগ্রিকভাবে রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিশেষ করিয়া আওয়ামী লীগের একটি অতি উৎসাহী অবিবেচক অংশের রাজনীতি। তখসকার দিনে একমাত্র আওয়ামী লীগই বাঙ্গালী জনতার ব্যাপক আস্থাভাজন ছিল এবং আওয়ামী লীগের পিছনে বাঙ্গালী জনতার সার্বজনীন সমর্থনের মূলেও ছিল এই অবাঙ্গালী বিদ্বেষ ও তদসম্পর্কে সর্বগ্রাসী প্রচারণা।